ঢাকা, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ | ফাল্গুন ১৬ ১৪৩০
ঢাকা, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪       
banner

এতেকাফ যে সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক বঙ্গবাণী

প্রকাশিত: ১২:০৪, ১২ এপ্রিল ২০২৩

এতেকাফ যে সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি

প্রতীকী ছবি

পবিত্র রমজানে এতেকাফ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও ফজিলতময় একটি ইবাদত, যদিও রমজানুল মোবারকের শুরু থেকেই অনেকে এতেকাফ শুরু করেছেন, সাধারণত এ মাসের শেষ ১০ দিনে এতেকাফকারীর সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়ে যায়। শেষ দশকে এতেকাফের বিশেষ নির্দেশনাও রাসূলে কারিম হযরত মুহম্মদ সা. বিভিন্ন হাদিসে বলে গেছেন। 

১. এতেকাফ অবস্থায় কেউ সাক্ষাৎ করতে এলে তার সঙ্গে কথা বলতে সমস্যা নেই। লক্ষ রাখতে হবে, এ অবস্থায় যেন কোনো অনর্থক ও অশ্লীল কথাবার্তা মুখ থেকে বের না হয়। এ সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি। 

২. এতেকাফ অবস্থায় ঘর থেকে কোনো মহিলা সাক্ষাৎ করতে এলে আপত্তি নেই। এক্ষেত্রে মহিলাকে পরিপূর্ণ পর্দা রক্ষা করতে হবে এবং এমন সময় সাক্ষাতে আসতে হবে, যখন পুরুষের মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কা একেবারেই কম। পর্দা ছাড়া মসজিদে আসা যাবে না। 


৩. এতেকাফ অবস্থায় কেউ সাক্ষাৎ করতে এলে তাকে বিদায় দেয়ার সময় মসজিদের দরজা পর্যন্ত এগিয়ে দেওয়া জায়েজ। মসজিদ থেকে বের হওয়া যাবে না। 

৪. এতেকাফ অবস্থায় স্ত্রীর সঙ্গে নির্জনে কথাবার্তা বলাও বৈধ। তবে স্বামী-স্ত্রীসুলভ আচরণ করা বৈধ নয়। 

৫. নিজের ব্যাপারে খারাপ ধারণা বা কঠিন সমালোচনার মুখে আলোচ্য বিষয়ে প্রকৃত তথ্য তুলে ধরা এতেকাফ অবস্থায়ও বৈধ এবং তা উত্তম। 

৬. হযরত আয়েশা রা: বলেন, ‘এতেকাফকারীর জন্য সুন্নত হলো, কোনো রোগী দেখতে না যাওয়া, কারো জানাজায় শরিক না হওয়া, স্ত্রীকে স্পর্শ না করা, তার সঙ্গে সহবাস না করা এবং একান্ত (শরীয়তসংশ্লিষ্ট প্রয়োজন) ছাড়া বের না হওয়া।’ 

৭. এতেকাফের নিয়তে মসজিদে অবস্থান করতে সময়ের কোনো নির্ধারিত পরিমাণ নেই। যতটুকু সময়ই এজন্য মসজিদে অবস্থান করবে, তা নফল বলে গণ্য হবে। রমজান মাসের সুন্নত ইতিকাফের জন্য ১০ দিন সময় নির্ধারিত।

এর কম করলে এতেকাফ হলেও এর সুন্নত আদায় হবে না। আল্লাহ্‌তাআলা আমাদের সঠিক নিয়মে এতেকাফ আদায়ের মাধ্যমে তাঁর নৈকট্য লাভের সৌভাগ্য অর্জন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

বঙ্গবাণীডটকম/এমএস

ধর্ম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত