ঢাকা, ১৪ জুন, ২০২৪ | জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪৩১
ঢাকা, ১৪ জুন, ২০২৪       
Shruhid Tea

গামলার মধ্যে ১১০টি গোখরা, যেন মৃত্যুর সঙ্গে খেলছেন ইমরান (ভিডিও)

মেহেদী সোহেল বঙ্গবাণী

প্রকাশিত: ১৮:৩২, ২৬ জুলাই ২০২১

গামলার মধ্যে ১১০টি গোখরা, যেন মৃত্যুর সঙ্গে খেলছেন ইমরান (ভিডিও)

ছবি- বঙ্গবাণী

দিয়ে যাবেন, বাবারা দিয়ে যাবেন, মনোসার খরচটা দিয়ে যাবেন। এই সেই শ্রাবণ মাস, মনোসার ধর্ম মাস। আশা করছেন, নিয়ত করছেন, বাবারা গরু-বাছুর, বচ্চা-কাচ্চার নামে দিয়ে যাবেন। ফরিদপুর সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের লক্ষীদাসের হাটের গুর হাটা আসতেই এই কথাগুলো শোনা গেলো। কাছে গিয়ে দেখা গেলে পঁচিশোর্ধ এক যুবক একটি এলুমিনিয়িামের গামলার মধ্যে অনেকগুলো গোখরা সাপের বাচ্চা নারাচারা করছে আর এসব কথা বলে টাকা সংগ্রহ করছে। 

কথা হলো ঐ যুবকের সঙ্গে, জানালেন, এই গামলায় ১১০ টি বাচ্চা সাপ রয়েছে। এগুলো ১৫ দিন আগে শহরের স্লুইচগেট এলাকা থেকে ধরেছেন। দুটি সাপের ডিম থেকে এই বাচ্চাগুলো ফুটেছে। বাচ্চাগুলো বিভিন্ন পোকা-মাকড় খায়। এছাড়া দুধ ও পানি পান করে। এগুলোকে প্রতিদিন আধা লিটার দুধ দিতে হয়।

ওই যুবকের পরিচয় জানতে চাইলে বললেন, তার নাম মো. ইমরান খান, বাড়ি সদর উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের ধোপাডাঙ্গা এলাকায়। তার বাবাও একজন সাপুড়ে, দাদাও তাই ছিলেন। তারা বিভিন্ন হাটে-বাজারে সাপ খেলা দেখাতেন। সেখান থেকে যা আয় হতো তা দিয়েই নিজেদের সংগ্রহে থাকা সাপগুলো খাবারের যোগান হতো, চলতো নিজেদের সংসারও। 

কিন্তু বিপত্তি বাধিয়েছে মহামারী করোনা। ধারাবাহিক লকডাউন ও বিধি-নিষেধের কারণে চিত্ত বিনোদনের সনাতন মাধ্যমগুলো একেবারেই বন্ধ রয়েছে। সেই সঙ্গে বন্ধ হয়ে গেছে এই ধরনের মানুষগুলোর আয় এর উৎস।

ইমরান বলেন, ছোট থেকেই বাবা-দাদার সঙ্গে এই সাপ ধরা ও সাপ খেলা দেখানো শিখেছি। অন্য কোন কাজ করতে পারিনা। বাড়িতে প্রায় পঁচিশটিরমত বড় গোখরা সাপ রয়েছে। সেগুলোর খাবার যোগার করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। এছাড়া পরিবারে বাবা-মা, স্ত্রী ও দুই কণ্যা রয়েছে। সাপগুলোর খাবার যোগারের পর সংসার চালাতে কষ্ট হয়। তাই মাঝে মধ্যে হাটে বসি, যতটুকু পাওয়া যায়।’

গামলার মধ্যে উন্মুক্ত ভাবে রাখা ১১০টি বাচ্চা সাপ নারাচারা করছেন, এগুলোকি বিষমুক্ত? এমন প্রশ্নের জবাবে ইমরান বললেন, ‘না, এগুলো বিষমুক্ত নয়। এ থেকে যদি কোনো একটি সাপ কাউকে কামড় দেয় তাহলে সে সঙ্গে সঙ্গে মারা যাবেন। আমাকে দিলেও আমি মারা যাবো। তবে এই গামলাটা বন্ধ (মন্ত্র) দেওয়া আছে, যে কারণে কাউকে কামড়াবে না।’

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

বঙ্গবাণীডটকম/এমএস